Sunday, 9 March 2014

ছেলেবেলার ভাললাগা গল্প: প্রভু–ভৃত্য–সংবাদ (পরিতোষকুমার চন্দ্র)





4 comments:

  1. এখনও দারুণ লাগলো

    ReplyDelete
  2. চমৎকার লাগল। এরকম একটি গল্প ছোটবেলায় মায়ের মুখে শুনেছিলাম। এক রাজার অসুখ করেছিল। কবিরাজ যে ওষুধ দিলেন তার অনুপান ছিল খুদের জাউ। সূপকার সেই জাউ রান্না করে রাজাকে খবর দিত। রাজা রান্নাঘরে এসেই সেই জাউ খেয়ে যেতেন। একদিন রাজার কাছে বিদেশ থেকে দূত এসেছে রাজা তার সাথে কথা বলতে ব্যস্ত খুদের জাউ খেতে যাবার কথা তাঁর মনে নেই। এদিকে সূপকার আর কতক্ষণ অপেক্ষা করবে? শেষে সে রাজদরবারে গিয়ে নিবেদন করল, "মহারাজ, চালমণির পুত্র খুদমণি রায় মহারাজা সে আপনার সংগে দেখা করতে চায়।" রাজা ইঙ্গিত বুঝে উত্তর দিলেন "তিনি আছেন কোথায়?" সূপকার বলল "পাথুরিয়া দেশে কাঠির তাড়নায়, রাজামশাই না এলে সে জুড়ান্তিপুর যায়"। রাজামশাই অতিথির অনুমতি নিয়ে জাউ খেতে গেলেন।
    উপেন্দ্রকিশোরেরও এরকম একটি গল্প আছে। তবে সেটা চাকরের বুদ্ধিমত্তার প্রসঙ্গে। ধনীর গৃহে দাওয়াত হচ্ছে। গৃহকর্তার দাড়িতে পোলাওয়ের ভাত লেগে আছে। তিনি টের পাচ্ছেন না। চাকর তখন গানের সুরে গুনগুনিয়ে বলল "ফুলের তলে বুলবুল ছানা তাকে উড়িয়ে দে না উড়িয়ে দে না। মনিব বুঝতে পেরে দাড়ি থেকে ভাত ঝেড়ে ফেলে দিলেন।
    তাতে অবশ্য বর্তমান লেখাতির গুণ বা মূল্য কোনটাই কমে না।

    ReplyDelete
  3. ধন্যবাদ‚ চমৎকার নতুন গল্প শোনাবার জন্য। ভাল থাকবেন।

    ReplyDelete